Home দেশ করোনা আক্রন্ত দাউদ ইব্রাহিম!

করোনা আক্রন্ত দাউদ ইব্রাহিম!

by banganews

ভারতের মোস্ট ওয়ান্টেড টেররিস্টের তালিকার শীর্ষে রয়েছেন দাউদ। ইন্টারপোলওপাক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, কোভিড-১৯ পজিটিভ হওয়ার পর বর্তমানে করাচির সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন দাউদ ইব্রাহিম। তাঁর স্ত্রী মেহজাবিন ওরফে জুবিনা জারিনাও পজিটিভ হয়েছেন। তাঁকেও ওই হাসপাতালে রাখা হয়েছে। দাউদ ইব্রাহিমকে বিশ্বের “১০ মোস্ট ওয়ান্টেড” ফেরারের অন্যতম তকমা দিয়েছে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই। ২০০৩ সালে তাঁকে বিশ্ব-সন্ত্রাসবাদীর তকমা দিয়েছে ভারত ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। বম্বে বিস্ফোরণের জন্য তাঁর মাথায় ২৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্য ধার্য করা হয়েছে।
ভারতের গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্টেও দাউদের করোনা পসিটিভ হওয়ার খবরপাওয়া যায়৷ যদিও ভারতের ‘মোস্ট ওয়ান্টেড’ আন্ডার ওয়ার্ল্ড ডন দাউদ ইব্রাহিম (Dawood Ibrahim)-এর করোনা সংক্রমণের খবর গুজব বলে উড়িয়ে দিলেন দাউদের ভাই অনীস ইব্রাহিম (Anees Ibrahim)। দাবি করা হয়, মুম্বই অন্ধকার জগতের একদা ‘বেতাজ বাদশা’ দাউদ সস্ত্রীক করাচির সেনা হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। কোভিড-১৯ (Covid-19) টেস্ট রিপোর্ট পজিটিভ আসার পরেই তাঁদের হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়। খবরে প্রকাশ, দাউদের ব্যক্তিগত কর্মী ও বডিগার্ডদের কোয়ারান্টিনে পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন সঙ্গমেও দেখা যেতে পারে করোনা আতঙ্ক।

দাউদের অন্ধকার জগতের ব্যবসা সামলানোর দায়িত্ব এখন অনীসেরই হাতে।গোপন অবস্থান থেকে সংবাদ সংস্থাকে IANS-কে ফোনে অনীস জানিয়েছেন, করোনাভাইরাস মহামারীর আকার নিলেও দাউদ ইব্রাহিম ও তাঁর গোটা পরিবার সুস্থই রয়েছেন। পাকিস্তান ও সংযুক্ত আরব আমিরশাহিতে ডি কোম্পানির (D-company) ব্যবসা চলার কথাও স্বীকার করে দাউদের ভাই।দাউদের ভাই অনীসও ১৯৯০ সাল থেকে খবরের শিরোনামে।বলিউডের ছবিতে অন্ধকার জগতের টাকা খাটানোর অভিযোগও রয়েছে অনীসের বিরুদ্ধে। দুবাই থেকে ক্রিকেট বেটিংচক্র চালানোর মামলাতেও অভিযুক্ত। কয়েক বছর আগে সৌদি আরবে একবার ধরাও পড়েছিলেন। কিন্তু, ভারতে প্রত্যর্পণের আগে গোয়েন্দাদের হেফাজত থেকে পালিয়ে যেতে সক্ষম হন। তার পর থেকে অনীসও অধরা। পাকিস্তান ও দুবাইয়ে ব্যবসা চালানোর কথা তিনি অস্বীকার করেননি। জানান, UAE-তে ডি-কোম্পানির একাধিক বিলাসবহুল হোটেল রয়েছে। রয়েছে ট্রান্সপোর্টের ব্যবসাও।

আরও পড়ুন – ৩৪০ বছরের পুরোনো তেহট্টের কৃষ্ণরায় মন্দিরের স্নানযাত্রা

ভারতীয় গোয়েন্দারা অতীতে একাধিকবার দাবি করেন, ১৯৯৩ সালের মুম্বই ধারবাহিক বিস্ফোরণ মামলার মূলচক্রী দাউদ ইব্রাহিম পাক গুপ্তচর সংস্থা ISI-এর সুরক্ষাবলয়ে করাচিতে বহাল তবিয়তে রয়েছেন। ৯৩-এর মুম্বই বিস্ফোরণ-সহ সীমান্ত অপরাধের একাধিক মামলায় পুলিশের খাতায় দাউদ মোস্ট ওয়ান্টেড। দাউদকে ভারতের হাতে তুলে দেওয়ার জন্য অতীতে একাধিকবার পাকিস্তানের কাছে আর্জি জানিয়েছিল নয়াদিল্লি।কিন্তু ইসলামাবাদ কখনও এটা স্বীকার করেনি দাউদ ইব্রাহিম সপরিবার পাকিস্তানে রয়েছে।

আরো পড়ুন – লকডাউনের জন্য বন্ধ থাকা অফিসের কর্মীদের বেতন কি কাটা হবে? কী নির্দেশ দিল আদালত?

You may also like

1 comment

Leave a Reply!