Home বঙ্গ জেলায় Corona আক্রান্তের অধিকাংশই পরিযায়ী শ্রমিক

জেলায় Corona আক্রান্তের অধিকাংশই পরিযায়ী শ্রমিক

by banganews

বাংলা তথা ভারতের বিভিন্ন প্রান্তের পরিযায়ী শ্রমিকদের করুণ কাহিনীর কথা আমরা সকলেই জানি।  পায়ে হেঁটে দীর্ঘ পথ অতিক্রমের সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছিলেন শ্রমিকরা। পথেই প্রাণ হারিয়েছিলেন অনেকে। বেঁচে থাকার  নূন্যতম প্রয়োজনীয় সঞ্চয় যাদের নেই তাদের কাছে লকডাউন আর করোনা সমার্থক হয়ে গেছে। দুইই যেন বহন করে এনেছে তাদের মৃতুর বার্তাকেই। কেন্দ্রীয় সরকরের ভুল সিদ্ধান্তের মাশুল গুণছেন এই শ্রমিকরা। অনাহারে দিন কাটছে এই সমস্ত পরিযায়ী শ্রমিকদের এবং বেঘোরে প্রাণ হারাচ্ছেন তারা ।  এরই মধ্যে কোনরকম মেডিকেল টেস্ট ছাড়াই এই সমস্ত পরিযায়ী শ্রমিকদের মহারাষ্ট্র সরকার কিভাবে এ রাজ্যে পাঠাচ্ছে তা নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ সরকার যথেষ্ট হতবাক।

মহারাষ্ট্রে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা রীতিমতো উদ্বেগজনক। আর তারই মধ্যে ত্রিশটি ট্রেন পরিযায়ী শ্রমিকদের নিয়ে আসতে চলেছে এ রাজ্যে। মহারাষ্ট্র সরকার ও রেল বোর্ডের পরিকল্পনায় রাজ্যে আসছে এই ট্রেনগুলি। ইতিমধ্যেই ছটি ট্রেন পরিযায়ী শ্রমিকদের নিয়ে রাজ্যে এসেছে। যাদের মধ্যে গ্রামীণ হাওড়াতে আক্রান্ত ৭২ জন শ্রমিক । গ্রামীণ হাওড়া ছাড়াও দেগঙ্গা , বর্ধমান , বীরভূম এবং মূর্শিদাবাদ প্রভৃতি জায়গায় রয়েছেন করোনা আক্রান্ত পরিযায়ীরা। অন্যান্য রাজ্যের তুলনায় পশ্চিমবঙ্গের করোনা আক্রান্তের হার অনেক কম এবং এছাড়াও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্দ্যোগে বাংলায় বাড়ানো হয়েছে করোনা চিকিৎসাকেন্দ্রও। সাধারণ মানুষের কাছে তিনি বার বার এই মারণ ভাইরাসের বিরুদ্ধে সচেতন হওয়ার বার্তা দিয়েছেন ।

আরো পড়ুন – বি জে পি লিডার চান বিরাট বিবাহ বিচ্ছেদ দিক অনুস্কা শর্মাকে কেন জানতে চান ?

হাওড়া গ্রামীণ অঞ্চলে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা সেভাবে ছিল না কিন্তু ৩৯২ জন শ্রমিক মহারাষ্ট্র থেকে ফেরার পর রাজ্য সরকারের তরফ থেকে করোনা টেস্টের পরের ফলাফল আতংকগ্রস্ত করে তুলেছে মহানগরীর বাসিন্দা দেয় । প্রায় ৭৬ জন শ্রমিক যারা ঘরে ফিরেছিলেন ট্রেনে অথবা নিজের ভাড়া করা গাড়িতে তাদের প্রত্যেকের রিপোর্ট কিন্তু পজিটিভ। অর্থাৎ ভিনরাজ্য থেকে আসা এই শ্রমিকদের মধ্যে রয়েছে করোনা ভাইরাস । রাজ্য সরকারের তরফ থেকে এদেরকে কোয়ারেণ্টাইনেও নিয়ে যাওয়া হয়েছে আমতা, উলুবেড়িয়া প্রভৃতি অঞ্চলে । দেগঙ্গা অঞ্চলের পরিযায়ী শ্রমিকদের ফেরত আসার পরেই করোনা পজিটিভের খবর আসতে থাকে । এর আগে এই অঞ্চলে কিন্তু করোনা পজিটিভ কোনো খবর আসেনি । যে ৪ জন করোনা পজিটিভ মানুষের সন্ধান পাওয়া যায় এরাও দিল্লী থেকে ফেরতে আসেন কিছু দিন আগেই । রাজ্যসরকার এক্ষেত্রেও যথাযথ টেস্ট এবং হোম কোয়ারান্টাইনের ব্যবস্থা নেন । সরকারের পক্ষ থেকে ওই অঞ্চলটিকেও সিল করে দেওয়া হয়েছে যাতে করোনা সংক্রমণ রোধ করা যায়।

আরো পড়ুন – একসাথে ৬০ জন করোনা আক্রান্ত সুস্থ মেডিক্যালে! সাফল্যের অন্যতম নজির গড়ল কলকাতা মেডিক্যাল

প্রসঙ্গত, দেশের এক তৃতীয়াংশ করোনা আক্রান্ত এখন মহারাষ্ট্রে। সূত্রের খবর রাজ্যের আপত্তি সত্ত্বেও এবার আরো ৩০টি ট্রেন পরিযায়ী শ্রমিকদের নিয়ে খুব শীঘ্রই হাওড়া স্টেশনে আসতে চলেছে।দেশের এক-তৃতীয়াংশের বেশি করোনা-আক্রান্ত মহারাষ্ট্রেই। মুম্বইতেই সংক্রমিত ৩১ হাজার ৯৭২ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৮ জনের মৃত্যু হয়েছে মুম্বইতে। একদিনে মুম্বইতে করোনা-সংক্রমিত ১ হাজার ৪৩০ জন।সেখানে,রাজ্যে ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত ১৯৩।রাজ্যে মোট করোনা আক্রান্ত ৪০০৯। রাজ্যে ২৪ ঘণ্টায় ৫ জনের মৃত্যু।হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন ১,৪৮৬। ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৭২ জন। তার মধ্যেই বিমান পরিষেবা চালু হয়ে গেছে মুম্বই শহরে। রাজ্যকে না জানিয়ে এভাবে মুম্বই থেকে পরিযায়ী শ্রমিকদের ট্রেনে করে পাঠানোর ঘটনায় খুব স্বাভাবিক কারণেই রাজ্য প্রশাসন ক্ষুব্ধ।

You may also like

1 comment

Leave a Reply!