Home বঙ্গ দু’মাস পরে শুরু হলো অন্তর্দেশীয় বিমান পরিষেবা -জেনে নিন নতুন নিয়ম ।

দু’মাস পরে শুরু হলো অন্তর্দেশীয় বিমান পরিষেবা -জেনে নিন নতুন নিয়ম ।

by banganews

লকডাউনে ২ মাসের উপর বন্ধ ছিল বিমান পরিষেবা। বৃহস্পতিবার চালু হল অন্তর্দেশীয় বিমান পরিষেবা। লকডাউন এখনও কার্যকর রয়েছে এর মধ্যেই বৃহস্পতিবার বাংলা থেকে উড়ল বিমান। সকাল ৭ঃ৩৫ এ যাত্রী নিয়ে কলকাতা বিমানবন্দর থেকে দিল্লীগামী বিমান যাত্রা শুরু করে। তবে আমূল পরিবর্তন হয়েছে নিয়মে। বিমানবন্দরে প্রবেশ থেকে বিমানে ওঠা ও বিমান থেকে নামা প্রতিটি ক্ষেত্রেই সামাজিকবিধি মেনে চলতে হচ্ছে। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখেই চলতে হচ্ছে, করোনা সংক্রমণ আটকানোর জন্যই এই বিধিনিষেধ।

বিমানবন্দরে প্রবেশ থেকে শুরু করে বিমানে ওঠা এবং বিমান থেকে নামা সব ক্ষেত্রেই নিয়ম মেনে চলতে হবে এমনই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বিমানবন্দর থেকে।

আরো পড়ুন – এবার গ্যাস বুকিং হোয়াটসঅ্যাপে – বিস্তারিত তথ্য

প্রথম ধাপেই সাথে নিয়ে যাওয়া লাগেজ বিমানবন্দরের বাইরে রেখে স্যানিটাইজ করাতে হবে। এরপর নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা হবে। কোনো উপসর্গ দেখা গেলে তাঁকে ভেতরে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হবে না। বিমানবন্দরে প্রবেশের আগে মোবাইলে আরোগ্য সেতু অ্যাপ আছে কিনা তা দেখা হচ্ছে, যদি কোনো যাত্রীর এই অ্যাপ না থাকে তাহলে তাঁকে Self Declearation ফ্রম ভরতে হবে। রাজ্য সরকারের তরফে জানানো হয়েছে এই Self Declearation ফ্রম এই মর্মে ভরতে হবে যে প্রয়োজনে সেই ব্যাক্তি ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বাধ্য হবে।

টিকিট পরীক্ষার ক্ষেত্রে বদলানো হয়েছে নিয়ম। পেপার টিকিট থাকলে তা অটোমেটিক স্বয়ংক্রিয় যন্ত্রের মাধ্যমে চেক করা হচ্ছে অর্থাৎ কোনো আধিকারিক সেই টিকিট স্পর্শ করছেন না। আর ই-টিকিটের ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় রেখে তা পরীক্ষা করছেন সিআইএসএফ। আর আইডি চেকিংয়ের ক্ষেত্রেও একই ভাবে নিয়ম মেনে অটোমেটিক চেকিং মেশিনে স্পর্শ করে তা চেক করা হচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে ওয়েব চেকিং এর কথা বলা হয়েছে বিমানবন্দর থেকে।

আরো পড়ুন – উত্তরাখণ্ডের দাবানলের খবর আসলে ভুয়ো !!

বোর্ডিং পাশ চেকিং ও লাগেজ ট্যাগিংয়ে নিয়ম পরিবর্তন হয়েছে। বোর্ডিং পাশ আগে আধিকারিকরা চেক করত কিন্তু এখন বোর্ডিং পাশ কাউন্টারে একটি কাচের দেওয়ালের মত আস্তরণ করে নিরাপদ দূরত্বে দাঁড়িয়ে সেখানে দেখাতে হচ্ছে বোর্ডিং পাশ। শুধু তাই নয় আইডি চেক করা হচ্ছে একইভাবে দেখিয়ে। কোনো আধিকারিক স্পর্শ করছে না। লাগেজ ট্যাগিংও দিয়ে দেওয়া হচ্ছে এবং যাত্রীদের তা করে নিতে হচ্ছে। ডিজিসিএ এর গাইডলাইন অনুযায়ী কোনো বিমানকর্মী ট্যাগিং করবেন না। বোর্ডিং পাশের সাথে ট্যাগিংও দিয়ে দেওয়া হবে যাত্রীদের তা যাত্রীদের নিজেদের করে নিতে হবে।

সিক্যুরিটি চেক পয়েন্টে নতুন নিয়ম। অত্যাধুনিক ক্যামেরা বসিয়ে চেক করা হচ্ছে বোর্ডিং পাশ। ক্যামেরার সামনে ধরতে হচ্ছে বোর্ডিং পাশ, আর দূর থেকে সিআইএসএফ জাওয়ান তা পরীক্ষা করছে। একইভাবে যাত্রীদের কে দূরে দাড় করিয়ে খানিকটা পিছন থেকেই পরীক্ষা করা হচ্ছে। প্রত্যেক সিআইএসএফ জাওয়ান পিপিই ড্রেস পরেই এই কাজ করছেন। বিমানবন্দরে বসার ক্ষেত্রেও রয়েছে সোশ্যাল ডিসটেন্স মেণ্টেন করার নিয়ম । সারিবদ্ধ চেয়ারের মাঝেরটিতে দেওয়া রয়েছে ক্রশ চিহ্ন যাতে সেখানে কেউ বসতে না পারে ।

আরো পড়ুন – রাম গোপালের ‘ করোনাভাইরাস ‘ নিয়ে টুই্যট অমিতাভের

বিমানের ভেতরেও পরিবর্তন হয়েছে বেশ কিছু নিয়মের। সবাইকে ফেস সীল ও মাস্ক পরে থাকতে অনুরোধ করা হয়েছে, যতক্ষণ না বিমানটি দিল্লী পৌছাচ্ছে। উড়ান সংস্থা থেকে একটি সেফটি কিট দেওয়া হয়েছে যেখানে শিল্ড, মাস্ক ও স্যানিটাইর্জাস রয়েছে। বিমান সেবিকারা পিপিই পরে রয়েছেন। বারবার অনুরোধ করা হয়েছে যাত্রীদের আসনে থাকার জন্য কারণ বেশিরভাগ মাঝের সীট ফাঁকা রয়েছে।

দিল্লী বিমানবন্দরও বেশ শুনশান। ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে বিমান চলাচল শুরু হলেও দিল্লীর ব্যস্ততম ইন্দিরা গান্ধী বিমানবন্দর একেবারেই ফাঁকা। সেখানেও নিরাপত্তা রয়েছে পুরোমাত্রায়। অটোমেটিক স্যানিটাইজিং মেশিন বসানো রয়েছে। কলকাতা বিমান বন্দরেও বসার ক্ষেত্রে মাঝের সীট ফাকা রাখা হয়েছে। হাতে গোনা কয়েকটা দোকান খোলা রয়েছে যেখানে শুধু প্যাকেজড ড্রিঙ্ক ও প্যাকেজড ফুড পাওয়া যাচ্ছে। আর সমস্তটাই সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখেই মেনে চলা হয়েছে। থার্মাল চেকিং হয়েছে প্রত্যেক যাত্রীর। এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় যেতে সোশ্যাল ডিস্টেন্স মানতেই হবে সেটা বোঝা গেল দিল্লীতেও।

You may also like

4 comments