Home বিদেশ ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ বিক্ষোভে সামিল ব্রিটেনও

‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ বিক্ষোভে সামিল ব্রিটেনও

by banganews
আমেরিকায় পাল্লা দিয়ে বেড়ে চলেছে বিক্ষোভ। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন রাজ্যের শহরে বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে লাগাতার সংঘর্ষ চলছে পুলিশের। কৃষাঙ্গ ব্যক্তি জর্জ ফ্লয়েডকে হত্যা করার বিরুদ্ধেই শুরু হয়েছে এই প্রতিবাদ। তবে সম্প্রতি উঠে এসেছে চাঞ্চল্যকর এক তথ্য। তদন্তে জানা গেছে জর্জ ফ্লয়েডের হত্যা এবং গোটা আমেরিকা জুড়ে এই উত্তাল  হওয়ার মূল কারণ একটি কুড়ি ডলারের নোট!
জর্জ ফ্লয়েডের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছিল যে তিনি ২০ ডলারের একটি জাল নোট দিয়ে একটি দোকান থেকে সিগারেট কেনার চেষ্টা করছিলেন। দাবি করা হয় জর্জ ফ্লয়েড যে নোটটি দিয়েছিলেন, দোকানের কর্মচারী সেটিকে জাল হিসেবে সন্দেহ করার পর ফ্লয়েডের কাছে বিক্রি করা সিগারেট ফেরত চান। পুলিশের কাছে ওই দোকানদারের করা ফোনের ভিত্তিতে তৈরি করা সেই অনুলিপিটিতে বলা হয় যে দোকানদার সন্দেহ করেছিল যে ঐ ব্যক্তি ‘মাতাল’ এবং ‘নিয়ন্ত্রণহীন’ অবস্থায় রয়েছে।
তবে সংবাদ সংস্থাকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে দোকানটির মালিক মাইক আবুমায়ালেহ জানান, জর্জ ফ্লয়েড তার দোকানের নিয়মিত খদ্দের ছিলেন এবং কখনোই কারো সাথে খারাপ ব্যবহার করেননি। আবুমায়ালেহ আরো বলেন যে ঘটনার দিন তিনি দোকানে থাকলে পুলিশকে ফোন করার প্রয়োজনই হতো না এবং জর্জ ফ্লয়েডও হয়তো বেঁচে থাকতেন। ওই কর্মচারী পুলিশকে  ফোন করেছিলেন কারণ জাল নোট সন্দেহ হলে পুলিশকে ফোন করাই নিয়ম। পরে অবশ্য ফ্লয়েডের ওই মর্মান্তিক পরিণতি দেখে সে আত্মগ্লানিতেও ভুগেছে।
আর গত কয়েকদিন ধরে এই বিক্ষোভে নতুন এক অনুষঙ্গ লক্ষ্য করা যাচ্ছে, আর তা হলো বিক্ষোভকারীরা অনেক জায়গায় অনেক ঐতিহাসিক নেতা বা বিখ্যাত ব্যক্তিত্বদের ভাস্কর্য ভাঙচুর করছে কিংবা উপড়ে ফেলছে। ব্রিটেনের ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ বিক্ষোভকারীরা ব্রিস্টল শহরে এডওয়ার্ড কলস্টোনের একটি মূর্তি ভেঙে ফেলে। আর গত কয়েকদিন ধরে এই বিক্ষোভে নতুন এক অনুষঙ্গ লক্ষ্য করা যাচ্ছে, আর তা হলো বিক্ষোভকারীরা অনেক জায়গায় অনেক ঐতিহাসিক নেতা বা বিখ্যাত ব্যক্তিত্বদের ভাস্কর্য ভাঙচুর করছে কিংবা উপড়ে ফেলছে। ব্রিটেনের ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ বিক্ষোভকারীরা ব্রিস্টল শহরে এডওয়ার্ড কলস্টোনের একটি মূর্তি ভেঙে ফেলে। ব্রিস্টল শহরের এডওয়ার্ড কলস্টন ছিলেন সপ্তদশ শতাব্দীর একজন দাস ব্যবসায়ী। ব্রিস্টলের অনেক মানুষ আবার অনেক দিন ধরেই এই ভাস্কর্যটি সরিয়ে ফেলার দাবি জানিয়ে আসছিলেন।
অন্যদিকে, খোদ আমেরিকায় ভাঙ্গা হয়েছে ক্রিস্টোফার কলম্বাসের ভাস্কর্য। মিনেসোটা ও ভার্জিনিয়া রাজ্য এবং বস্টন ও মিয়ামি শহরে কলম্বাসের মূর্তি ভাঙা হয়েছে।
পাশাপাশি, দাবি তোলা হয়েছে যে কনফেডারেট জেনারেলদের নামে যেসব সেনানিবাস রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে, সেগুলোর নাম পরিবর্তন করতে হবে। যুক্তরাষ্ট্রের বেশ কয়েকটি এলাকাতেও একইভাবে বিক্ষোভ প্রকাশ করছেন প্রতিবাদকারীরা। বিভিন্ন শহরে এরই মধ্যে বেশ কয়েকজন খ্যাতনামা ও ঐতিহাসিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ বিবেচিত ব্যক্তির মূর্তি ভাঙচুর করা হয়েছে।

You may also like

2 comments

দড়ি ধরে মারো টান 'ক্লাইভ' হবে খান খান - TheBangaNews.com | Read Latest Bengali News | Bangla News | বাংলা খবর | Breaking News in Bangla from West Bengal June 13, 2020 - 11:01 pm

[…] তার লেখা বিখ্যাত দুটি বই।  আরও পড়ুন : ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ বিক্ষোভে সাম… সম্প্রতি আমেরিকা থেকে শুরু করে সারা […]

Reply

Leave a Reply!