Home ব্যবসা-বাণিজ্য বিপর্যস্ত ভারতীয় অর্থনীতি, চলতি বছর শোচনীয় জিডিপি-র পূর্বাভাস

বিপর্যস্ত ভারতীয় অর্থনীতি, চলতি বছর শোচনীয় জিডিপি-র পূর্বাভাস

by banganews

দিল্লি, ৩১ অগাস্ট, ২০২০: অর্থনীতিবিদদের আশঙ্কাই সত্যি প্রমাণিত হল। কেন্দ্র সরকারের দেওয়া তথ্য বলছে, চলতি বছরের প্রথম ত্রৈমাসিকে ভারতের জাতীয় উৎপাদন বা জিডিপি কমল ২৩.৯ শতাংশ। এই হিসেব এপ্রিল-জুন মাস অবধি। ব্লুমবার্গ ইকনমিক্স-এর পূর্বাভাস, একবছর আগের তুলনায় এবছরের জিডিপি কমতে পারে ১৯.২ শতাংশ। তাদের সমীক্ষা বলছে, এশিয়ার মধ্যে সবচেয়ে বেশি জিডিপি কমবে ভারতে। করোনা অতিমারীর কারণেই জিডিপি-র এই অস্বাভাবিক পতন বলে জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।
অতিমারীর ফলে ভারতীয় অর্থনীতি একেবারে তলানিতে। ব্যবসা-বাণিজ্য চাঙ্গা করার জন্য সরকার যে ২১ লক্ষ কোটি টাকার প্যাকেজ ঘোষণা করেছে, তারপরেও জিডিপি-র এই দৈন্যদশা রোধ করা সম্ভব হয়নি।

আরও পড়ুন জন্মদিনের ঋতুপর্ণ, কাবাব আর রেখা

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ১৯৯৬ সাল থেকে ত্রৈমাসিক জিডিপি বিকাশের হার জানানো শুরু হয়। তার পর থেকে কখনই মোট জাতীয় উৎপাদনের হার কমেনি।
গত আর্থিক বছরের শেষ ত্রৈমাসিকে অর্থাৎ অতিমহামারী দেখা যাওয়ার ঠিক আগেই জিডিপি বিকশিত হয়েছিল ৩.১ শতাংশ হারে। ২০১৯ সালে জুনে শেষ হওয়া ত্রৈমাসিকে জিডিপি বেড়েছিল ৫.২ শতাংশ।
অবশ্য অতিমারী শুরু হওয়ার আগেই ভারতীয় অর্থনীতির গতি ধীর হয়ে যায়। ব্যাঙ্কঋণ এবং ভোগ্যপণ্য দুইয়ের চাহিদাই কমতে থাকে। তার মূল কারণ ঊর্ধ্বমুখী বেকারত্ব এবং কেন্দ্র সরকারের বেশ কিছু বিভ্রান্তিকর নীতি। তার ওপর কফিনে শেষ পেরেক পুঁতে দিল করোনা আর প্রথমদিকের সার্বিক লকডাউন।

আরও পড়ুন রাজনীতির হাতেখড়ি এখানেই, প্রণব মুখোপাধ্যায়ের প্রয়াণে শোকাহত মহিষাদল

রিজার্ভ ব্যাঙ্কের মতে, অর্থনীতির যে ক্ষেত্রগুলি সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে, তার মধ্যে আছে পরিবহণ, হোটেল, বিনোদন ও সাংস্কৃতিক কার্যকলাপ। বাৎসরিক রিপোর্টে আরবিআই স্পষ্ট বলেছে, ভোগ্যপণ্যের চাহিদা ব্যাপক কমেছে। তা কোভিড পূর্ববর্তী স্তরে আসতে সময় লাগবে বেশ কয়েক বছর।

You may also like

1 comment

Leave a Reply!