Home বঙ্গ কথা রাখলেন শুভেন্দু, শান্তিকুঞ্জে ফোটালেন পদ্মফুল

কথা রাখলেন শুভেন্দু, শান্তিকুঞ্জে ফোটালেন পদ্মফুল

by banganews

কাঁথিঃ সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় হুঁশিয়ারি দিয়ে সদ্য তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদানকারী শুভেন্দু অধিকারীকে বলেছিলেন, আগে তো বাড়িতে ফুল ফোটাও, তার পর রাজ্যে পদ্ম ফোটাবে। সেই কথার পরিপ্রেক্ষিতে শুভেন্দু অধিকারী জানিয়েছিলেন অধিকারী পরিবারের পাশাপাশি তোমার বাড়িতেও ( অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়) পদ্ম ফোটাবো। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়িতে পদ্ম ফুটবে কি না তা সময়েই বলবে। তবে অধিকারী পরিবারে ফের পদ্ম ফোটালেন শুভেন্দু। শুভেন্দু অধিকারীর ভাই সৌমেন্দু অধিকারী ১০ বছর ধরে কাঁথি পুরসভা চেয়ারম্যানের পদ সামলেছেন। গত ৩০ জানুয়ারি সৌমেন্দুকে কাঁথি পুরসভার প্রশাসকের পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়। তার পর থেকেই অধিকারী পরিবারের ছোট ছেলে সৌমেন্দু অধিকারী সহ কাঁথি পুরসভার একাধিক বিদায়ী কাউন্সিলরের বিজেপিতে যোগদান নিয়ে জল্পনা তৈরি হয়। নতুন বছরের প্রথম দিন সেই জল্পনার অবসান ঘটালেন শুভেন্দু অধিকারী। সৌমেন্দু সহ এদিন ১৫ জন কাউন্সিলর সহ কয়েকশ কর্মী সমর্থক তৃণমূল ছেড়ে বিজেপির পতাকা ধরেন।এদিন নিজের গড়ে জোড়া সভা করেন শুভেন্দু অধিকারী।

আরও পড়ুন তৃণমূল কংগ্রেসের প্রতিষ্ঠা দিবসে শুভেচ্ছা জানিয়ে টুইট করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

প্রথমে নন্দীগ্রামের সোনাচূড়ায় প্রতিরোধ সভা করেন প্রাক্তন বিধায়ক। সেখানে তিনি দাবি করেন, ‘তৃণমূলের পায়ের তলা থেকে মাটি সরে গেছে। তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা আমাদের ভয় পাচ্ছে। তাই সাধারণ মানুষের উপর অত্যাচার করছে।’
শুভেন্দু বলেন, ‘ধর্মীয় সভায় যাওয়ার পথে হামলা চালিয়েছে। মহিলা, শিশুদেরও ছাড়েনি। তাঁর হুঁশিয়ারি, ‘কাঁথি থেকে তৃণমূলকে ঝেঁটিয়ে পরিষ্কার করে দেব।’ এরপরই শুভেন্দু স্পষ্ট জানিয়ে দেন, ‘কাঁথির সভায় বিজেপিতে যোগ দেবেন সৌম্যেন্দু। তিনি ছাড়াও যোগ দেবেন আরও কয়েকজন।’ গত মঙ্গলবার, নন্দীগ্রামে শুভেন্দু অধিকারীর সভায় যোগ দিতে যাওয়ার পথে, সোনাচূড়ার ভূতার মোড়ে আক্রান্ত হন বিজেপি কর্মীরা। বাস ভাঙচুর করা হয়। তৃণমূল কর্মীদের বিরুদ্ধে হামলা চালানোর অভিযোগ ওঠে। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করে তৃণমূল।
আহত দলীয় কর্মীদের হাসপাতালে দেখতে যান বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী। প্রথমে নন্দীগ্রাম সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল ও তারপর তমলুক জেলা হাসপাতালে যান তিনি। আহতদের কাউকে বুকে টেনে নেন। কারও গায়ে-মাথায় হাত বুলিয়ে স্বাস্থ্যের খোঁজ-খবর নেন। কীভাবে হামলা হল? সেসময় কতজন ছিল তাও জানতে চান শুভেন্দু অধিকারী।এরপর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে ফের তৃণমূলের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন তিনি। বলেন, ধর্মীয় সভায় আসার পথে হামলা, নন্দীগ্রামে জমি আন্দোলনের জন্য লড়াই করেছি, প্রয়োজনে ফের আন্দোলনে যাব। ওই হামলার প্রতিবাদেই আজ সভা করেন শুভেন্দু অধিকারী।

আরও পড়ুন মীরজাফর তকমায় ক্ষুব্ধ কাঁথির সাংসদ শিশির অধিকারী

নন্দীগ্রামের পর এদিন বিকেলে কাঁথির ডরমিটরি মাঠে বিজেপির যোগদান মেলার আয়োজন করা হয়। সেখানেই শুভেন্দু তার ছোট ভাই সৌমেন্দু অধিকারী সহ ১৫ জন বিদায়ী কাউন্সিলর ও কয়েকশো কর্মী-সমর্থককে বিজেপিতে যোগদান করান। কাঁথির মঞ্চ থেকে শুভেন্দু অধিকারী বলেন, ‘২০১১ সালে অধিকারী ছিল বলেই ক্ষমতায় এসেছিল, ২০২১-এ অধিকারী পরিবার থাকবে না তাই দ্বিতীয় হতে হবে। অধিকারী পরিবার ছিল বলে করোনা পরিস্থিতে সাধারণ মানুষের পাশে থেকে পরিষেবা দিতে পেরেছে সরকার। আজ কাঁথি করোনা মুক্ত। এবার দেখব পৌর এলাকায় নোংরা আবির্জনা পরিস্কার, পানীয় জল, পথবাতি পরিষেবা কিভাবে পাওয়া যায়। পাশাপাশি তিনি এদিন অবিভক্ত মেদিনীপুরের মানুষকে একজোট হয়ে ” মেদিনীপুরের মানুষ বেইমান” এর জবাব হিসেবে নির্বাচনে বাংলাকে প্রধানমন্ত্রী হাতে তুলে দেওয়ার আহ্বান জানান।

You may also like

Leave a Reply!