Home দেশ চিনা ফৌজের আগ্রাসন রুখলেও জট কাটেনি, সংসদে রাজনাথ

চিনা ফৌজের আগ্রাসন রুখলেও জট কাটেনি, সংসদে রাজনাথ

by banganews

দিল্লি, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০: প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখতে চায় ভারত। শান্তি বজায় রাখতে চায়। কিন্তু চিন বারবার আগ্রাসনের সুযোগ খোঁজে। মূলত তার জন্যই প্যাংগং, গালওয়ানের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় উত্তেজনা বেড়েছে। গালওয়ানে সেনা সংঘর্ষ হয়েছে। পূর্ব লাদাখ পরিস্থিতি নিয়ে লোকসভায় এ কথা বললেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংহ।

আরও পড়ুন জয়া বচ্চনকে বেনজিরভাবে বিঁধলেন কঙ্গনা

লোকসভায় দাঁড়িয়ে ভারতীয় সেনার ভূয়সী প্রশংসা করেন রাজনাথ। তিনি বলেন, “ভারতীয় সেনা চিনকে উপযুক্ত জবাব দিয়েছে। গালওয়ানে সংঘর্ষে ভারতের ২০ জওয়ানের মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু চিনের পক্ষে তার চেয়ে অনেক বেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ভারতীয় সেনার হাতে বিপুল সংখ্যক চিনা বাহিনীর মৃত্যু হয়েছে। আবার যেখানে সংযম দেখানোর দরকার, জওয়ানরা সেটাই করেছে। শুধু সংসদ নয়, সারা দেশবাসীর ভারতীয় সেনার পাশে দাঁড়ানো উচিত।”
এদিন মূলত সমস্যা কোথায় ও গত কয়েক মাসে কী কী হয়েছে, বিস্তারিত ভাবে সংসদে তার ব্যাখ্যা দেন রাজনাথ সিং। তিনি স্পষ্ট করেন, প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা ঠিকমতো চিহ্নিত নয়, কারণ অনেক জায়গার ওপর দাবি আছে উভয় চিন ও ভারতের। এই সমস্যা নিরসনে প্রাথমিক ভাবে আগ্রহ প্রকাশ করলেও পরে তেমন কিছু করেনি চিন।
প্রতিরক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, ঐতিহাসিক ভাবে যেটা সীমান্ত হিসাবে চিহ্নিত, সেটা মানে না চিন। তাই অশান্তি জিইয়ে আছে এখনও।
রাজনাথ বলেন, “ভারত-চীন সমস্যার সমাধান হয়নি। এখনও পর্যন্ত পারস্পরিক গ্রহণযোগ্য কোনও সমাধান নেই। চিন প্রথাগতভাবে সীমান্ত বিন্যাস মেনে চলে না। কিন্তু আমরা মনে করি সুষ্ঠভাবে ভৌগলিক নীতি অনুযায়ী সীমান্ত বিন্যাস হওয়া উচিত।”

আরও পড়ুন ২৫ সেপ্টেম্বর থেকে দেশজুড়ে ফের লকডাউন ? কেন্দ্রীয় সরকার যা জানাল

সংসদে প্রতিরক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, “দুই দেশই নিজেদের সীমান্তে শান্তি ও স্থিতি অবস্থা বজায় রাখতে সম্মত হয়েছে। তবে দুই দেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক আরও উন্নত করা জরুরি।” দুই দেশের মধ্যে একাধিকবার সেনা এবং কূটনৈতিক পর্যায়ে বৈঠক হলেও এখনো পর্যন্ত বরফ গলেনি বলে জানিয়েছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী। সেই সঙ্গে তিনি দেশবাসীকে আশ্বস্ত করে এও বলেছেন, কোনওভাবেই চিনা ফৌজের আগ্রাসনকে মেনে নেওয়া হবে না।

You may also like

1 comment

Leave a Reply!