Home দেশ প্রাক্তন রাষ্ট্রপতির মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ ও স্মৃতিচারণা করে ট্যুইট মোদি-মমতার

প্রাক্তন রাষ্ট্রপতির মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ ও স্মৃতিচারণা করে ট্যুইট মোদি-মমতার

by banganews

ছবি সৌজন্যে – প্রধানমন্ত্রীর ফেসবুক পেজ

দিল্লি, ৩১ অগাস্ট,২০২০ঃ  প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ রাজনৈতিক মহল। ট্যুইটে বিভিন্ন স্মৃতিচারণার পাশাপাশি তাঁর সুদৃঢ় ব্যক্তিত্ব ও রাজনৈতিক দূরদর্শিতার কথা তুলে ধরে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছেন বর্তমান রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও এরাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

“সালটা ২০১৪। আমি তখন দিল্লিতে নতুন। প্রথম দিন থেকেই প্রণব মুখোপাধ্যায়ের আশীর্বাদ, সমর্থন ও পরামর্শ পেয়েছি। তাঁর সঙ্গে কথোপকথন চিরকাল মনে থাকবে।” প্রণববাবুর পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে ট্যুইট করেন প্রধানমন্ত্রী।

আরও পড়ুন রাজনীতির হাতেখড়ি এখানেই, প্রণব মুখোপাধ্যায়ের প্রয়াণে শোকাহত মহিষাদল

 

“রাষ্ট্রপতি থাকাকালীন রাষ্ট্রপতি ভবনকে সাধারণ মানুষের জন্য সুগম করেছিলেন প্রণব মুখোপাধ্যায়। রাষ্ট্রপতি ভবনকে তিনি বানিয়েছিলেন শিক্ষা, সংস্কৃতি, বিজ্ঞান ও সাহিত্যের কেন্দ্র। দেশের গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলিতে তাঁর বিচক্ষণতা কখনও ভুলব না।” দ্বিতীয় ট্যুইটে লেখেন মোদি।

“তাঁর রাজনৈতিক জীবন কয়েক দশকের। দেশের গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক সিদ্ধান্ত এবং অন্যান্য মন্ত্রকে তাঁর অবদান চিরস্মরণীয়। সাংসদ হিসেবেও তিনি ছিলেন অনন্য সাধারণ। বুদ্ধিমত্তা ও যেকোনও বিষয়ে সুস্পষ্ট বক্তব্য পেশের দক্ষতা ছিল তাঁর অন্যতম গুণ।” অপর একটি ট্যুইটে বলেন প্রধানমন্ত্রী।

 

ভারতরত্ন প্রণবের প্রয়াণে শোকজ্ঞাপন করে মোদী আরও একটি ট্যুইট করে বলেন, “দেশের উন্নয়নে তাঁর ভূমিকা অনস্বীকার্য। রাজনীতি ও সমাজের সব স্তরের মানুষের কাছেই তিনি ছিলেন সমান গ্রহণযোগ্য।”

বর্তমান রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ ট্যুইটারে প্রাক্তন রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নিজের কয়েকটি ছবি পোস্ট করেন। লেখেন, “তিনি সাধারণের জন্য রাষ্ট্রপতি ভবনের দরজা খুলে দিয়েছিলেন। রাষ্ট্রপতি পদের জন্য ‘মহামহিম’ শব্দের ব্যবহার বন্ধ করিয়েছিলেন তিনি। সংস্কার এবং আধুনিকতার মিশেল ছিল প্রণব মুখোপাধ্যায়ের ব্যক্তিত্বে। পাঁচ দশকের রাজনৈতিক জীবনে অনেক উচ্চ পদে থাকলেও তিনি সবসময়ই ছিলেন মাটির কাছাকাছি।”

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে প্রণব মুখোপাধ্যায় সম্পর্ক ছিল নিবিড়। তাঁর মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করে মমতার ট্যুইট, “আমি অত্যন্ত দু:খের সঙ্গে লিখছি। ভারতরত্ন প্রণব মুখোপাধ্যায় আমাদের ছেড়ে চলে গিয়েছেন। একটা যুগের পরিসমাপ্তি। কয়েক দশক ধরে তিনি আমার পিতার ভূমিকা পালন করেছিলেন। আমার প্রথম সাংসদ হওয়া থেকে মুখ্যমন্ত্রীত্ব পর্যন্ত তাঁকে পথপ্রদর্শক হিসেবে পেয়েছি।”

আর একটি ট্যুইটে তিনি বলেন প্রণব মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করা ছাড়া আমার দিল্লি সফর ছিল অকল্পনীয়। রাজনীতি থেকে অর্থনীতিতে তিনি ছিলেন কিংবদন্তি। চিরকৃতজ্ঞ থাকব, খুবই অভাব অনুভব করব। অভিজিত ও শর্মিষ্ঠাকে আমার সান্ত্বনা।”

You may also like

1 comment

Leave a Reply!