Home দেশ ধরা পড়ল বুধ গ্রহের শব্দ BepiColombo স্পেসক্র‍্যাফটের মাধ্যমে

ধরা পড়ল বুধ গ্রহের শব্দ BepiColombo স্পেসক্র‍্যাফটের মাধ্যমে

by banganews

এই প্রথমবার বুধ থেকে শব্দ শোনা গেছে। যেভাবে এটা সম্ভবপর হয়েছে সেটা হল এই BepiColombo স্পেসক্র্যাফট এর মাধ্যমে। বর্তমানে ইঞ্জিনিয়াররা বুধ গ্রহের চারপাশ থেকে সংগৃহীত ম্যাগনেটিক এবং অ্যাক্সিলেরোমিটার ডেটাকে শব্দে রূপান্তরিত করে প্রকাশ করেছেন। এর মাধ্যমেই প্রথমবার সূর্যের নিকটতম গ্রহ বুধের প্রথম শব্দ শোনা গিয়েছে। এই শব্দ শুনে মনে হয়েছে যেন সূর্যের কাছে থাকা একটি গ্রহে সৌর হাওয়া বোমা মারার মতো আওয়াজ করছে।

১ অক্টোবর যখন বুধ গ্রহের পাশ দিয়ে BepiColombo স্পেসক্র্যাফট যাচ্ছিল, তখন প্রথমবারের জন্য বুধ গ্রহের চারপাশের চৌম্বকীয় এবং পার্টিকল পরিবেশ উপলব্ধি করেছিল। বুধ গ্রহের ১৯৯ কিলোমিটারের মধ্যে দিয়ে যখন BepiColombo স্পেসক্র্যাফট অগ্রসর হয়েছিল সেই সময়ে গভীর মাধ্যাকর্ষণ টানও অনুভব করেছিল ওই মহাকাশযান।

সূর্যের সবচেয়ে কাছের গ্রহ হল বুধ। সূর্যের সবচেয়ে কাছে থাকা গ্রহ বুধকে ভালভাবে পর্যবেক্ষণ করার জন্যই পাঠানো হয়েছে এই BepiColombo স্পেসক্র্যাফট। এই মহাকাশযানের উড়ান আর পাঁচটা সাধারণ স্পেসক্র্যাফটের মতো না।

আরো পড়ুন

অপেক্ষার আর কিছুদিন – আসছে টাটার হাতে মালিকানা

২০১৮ সালে শুরু হয়েছিল এই BepiColombo মিশন। সাত বছরের জন্য মার্কারি-মিশনে গিয়েছিল এই স্পেসক্র্যাফট। যাত্রা সম্পন্ন করার জন্য, এই মহাকাশযানটির মোট নয়টি ‘গ্রহের মাধ্যাকর্ষণ সহায়তার’ প্রয়োজন ছিল, যা এই স্পেসক্র্যাফটকে সৌরজগতের সবচেয়ে ভিতরে থাকা গ্রহের পথে তার গতিপথ তৈরিতে সাহায্য করবে।

এর পাশাপাশি ওই মহাকাশযানের মাধ্যমে বুধ গ্রহ সংলগ্ন এলাকায় দিন-রাতের পারদের ফারাকও বোঝা গিয়েছে। স্পেসক্র্যাফট যখন গ্রহের রাত থেকে দিনের দিকে অগ্রসর হয়েছে তখন তাপমাত্রার পরিবর্তন বোঝা গিয়েছে। এছাড়াও একটি সায়েন্স ইন্সট্রুমেন্ট তার ‘পার্কিং’ অবস্থানের চারপাশে ঘোরার সময়ের শব্দও শোনা গিয়েছে।

BepiColombo স্পেসক্র্যাফট বুধ বা মার্কারি গ্রহ থেকে যে তথ্য সংগ্রহ করেছিল তা শব্দে রূপান্তরিত করেছেন ইঞ্জিনিয়াররা। সোলার উইন্ড বা সৌর বায়ু এবং বুধ গ্রহের সংলগ্ন এলাকায় থাকা চৌম্বকীয় ক্ষেত্রের তীব্রতার পরিবর্তনের মাধ্যমে এটা করা সম্ভব হয়েছে।

বিশেষ করে সেই মুহূর্তও ধরা পড়েছে যখন BepiColombo স্পেসক্র্যাফট magnetosheath ¬এলাকা দিয়ে অগ্রসর হয়েছে। এই magnetosheath ¬হল আসলে বুধ গ্রহ সংলগ্ন সোলার উইন্ড এবং ম্যাগনেটোস্ফিয়ারের মধ্যবর্তী হাইলি টারবুলেন্ট বাউন্ডারি রিজিয়ন।

প্রথম প্ল্যানেটারি গ্র্যাভিটি অ্যাসিস্ট পাওয়া গিয়েছিল পৃথিবী থেকে, এবছর এপ্রিল মাসে। দ্বিতীয় সাহায্য এসেছিল ২০২০ শুক্র গ্রহ থেকে। আর তৃতীয় প্ল্যানেটারি গ্র্যাভিটি অ্যাসিস্টও পাওয়া গিয়েছিল এই শুক্র গ্রহ থেকেই।

মহাকাশবিজ্ঞান জগতে এই BepiColombo স্পেসক্র্যাফট এক অন্যতম মাধ্যম।যার সাহায্যে গ্রহের ভিতরের অনেক অজানা তথ্য বিজ্ঞানীরা সংগ্রহ করতে পারছেন। গ্রহের ভিতরের শব্দ, তাপমাত্রা, চৌম্বকীয় টান ইত্যাদি বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ধরা দিচ্ছে এর মাধ্যমে।

You may also like

Leave a Reply!