Home কলকাতা সোশাল মিডিয়ায় শিল্পীরা একজোট, রূপঙ্করের উদ্যোগে Hope21

সোশাল মিডিয়ায় শিল্পীরা একজোট, রূপঙ্করের উদ্যোগে Hope21

by banganews

 Hope 21 আশা নিয়েই আমরা বেঁচে থাকি৷ কিন্তু আশার আলো কি সত্যি দেখা যাচ্ছে?

আশার আলো দেখতে পাওয়া যাচ্ছে কি যাচ্ছে না সেটা জানিনা।  কিন্তু জীবন তো থেমে থাকে না, এগিয়ে যেতে হবে।  এগিয়ে যাবার জন্য চেষ্টা করতে হবে।  খারাপ পরিস্থিতিতেও চেষ্টাটুকু তো করতেই হবে।  যখন দেয়ালে পিঠ ঠেকে যায় তখন কাজ বন্ধ করে চুপ করে বসে থাকলে তো চলবে না।  আমি শেষ হয়ে গেছি, আমার আর কিছু করার নেই এটা ভেবে বসে থাকাটা তো মূর্খামি।

সরকার বিভিন্ন বিপর্যয় মোকাবিলায় নানান পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন।  প্রয়োজনে ভাতা প্রদান করছেন।  শিল্পের ক্ষেত্রে এমন কিছুর প্রয়োজন আছে?

ব্যক্তিগতভাবে সরকারি ভাতার বিষয় আমি খুব একটা আগ্রহী নই।  আমি শুধু এটাই চাই ,পরিস্থিতি আবার আগের মত স্বাভাবিক হোক, করোনা পূর্বকালীন সময়ে যেভাবে মঞ্চে অনুষ্ঠান হত, যে কোনো প্রেক্ষাগৃহে অনুষ্ঠান হত মানুষ একজোট হয়ে বসে অনুষ্ঠান দেখতেন সেই পরিবেশ ফিরে আসুক।  কাজের পরিবেশ ২০২০ সালের আগে যেমন ছিল ঠিক সেইরকম হওয়াটা ভীষণ প্রয়োজন।  কাজের প্রয়োজন এবং সরকার কাজ করার মতন সুযোগ তৈরি করে দিন এটাই চাই৷

 ডিজিটাল কনসার্ট আগামী দিনে বিনোদনের অন্যতম মাধ্যম হতে চলেছে?

ডিজিটাল কনসার্ট কখনোই ফিজিক্যাল কনসার্টের অল্টারনেটিভ নয়।  কিন্তু এখন আমরা ডিজিটাল কনসার্ট করছি । কারণ এই সময় ফিজিক্যাল কনসার্ট করা যাচ্ছে না এবং সমগ্র বিশ্বের মানুষকে এক জায়গায় আনতে গেলে ডিজিটাল কনসার্টই এখন একমাত্র উপায়।  এটা শুধুমাত্র সাময়িক প্রয়োজনের তাগিদে কিন্তু ফিজিক্যাল কনসার্ট এর বিকল্প ছিল না, এখনো নয় এবং আগামীদিনেও ফিজিক্যাল কনসার্ট এর বিকল্প ডিজিটাল কনসার্ট হবে না৷

Hope 21 এ আপনি রয়েছেন, আকাশ ভট্টাচার্য এর মতন এই প্রজন্মের শিল্পী রয়েছেন আবার ক্যাকটাসের সিধু কিংবা কৌশিকী চক্রবর্তী রয়েছেন৷ করোনা কি শিল্পের আভ্যন্তরীণ বিভাজনরেখা মুছে দিয়েছে?

ভাঙা অবশ্যই উচিত ছিল।  তবে এই সময়ে দাঁড়িয়ে আমি কোন কিছু ভাঙতে চেয়ে অ্যারেঞ্জ করেছি তা নয়।  আমি একটা ফেসবুক পোস্ট করেছিলাম সেখানে আমাকে যারা সাপোর্ট জানিয়েছিলেন আমি তাদেরকে যোগাযোগ করেছি।  এর মধ্যে ক্লাসিকাল মিউজিক, রক মিউজিক বা নতুন প্রজন্মকে একসঙ্গে নিয়ে কাজ করার জন্য সচেতন প্রয়াস ছিল তা নয়।  যাদেরকে আমি বলতে পেরেছি তাদেরকে আমি বলেছি৷  দ্যাটস ইট৷

 

 

May be an image of 12 people and text that says "<ω> Publicity Design Digital PR Partner nusianamiles Ticketing Partner মিউজিশিয়ান এবং ব্যাকস্টেজ Hope আর্টিস্টদের সাহায্যার্থে 7 Days Streaming ২৮ আগস্ট, ২০২১ রাত ৯-০০ (বাংলাদেশ সময়) রাঘব চট্টোপাধ্যায় লোপামুদ্রা মিত্র মনোময় ভট্টাচার্য কৌশিকী চক্রবর্তী রূপঙ্কর অনিন্দ্য ইমন ক্রবর্তী পটা সিধু ক্যাকটাস উপল চন্দ্রিল ভট্টাচার্য জোজো সোমলতা আচার্য চৌধুরী লগ্নজিতা। উজ্জ্বয়িনী মুখাজী গৌরব সরকার আনন্দী আহেরী আকাশ ভট্টাচার্য മരമാമം Ticket Price: 367 BDT অনুষ্ঠান সম্পর্কে কোনো প্রশ্ন থাকলে যোগাযোগ -০১৬৪১২৪১৩২৫ BKash Details For Bangladesh 01713366711"

টিকিট সংগ্রহ করুন – https://musianamiles.com/shows/hope-21

 

সিডি থেকে ডিজিটাল কনসার্ট এই যাত্রাপথটা কেমন?

এত লম্বা একটা জার্নি এত সহজে বলে ফেলা যায় না।  এর মধ্যে অনেক লড়াই রয়েছে।  অনেক চড়াই-উৎরাই রয়েছে।  একটা সময় ছিল সিডি রিলিজ করত, এখন ডিজিটাল মিডিয়া এসেছে ইউটিউবে রিলিজ হচ্ছে। যাত্রাপথ কেমন এই প্রশ্নের উত্তর দেওয়া আসলে এতটা সহজ নয়।  খুব মিষ্টি করে এটা ভালো লেগেছিল, ওটা ভালো লাগেনি এভাবে বলাও যায় না।  তবে এটুকু বলতে পারি সিডি ক্যাসেটের যুগ আমার অনেক বেশি পছন্দের।  সেই সময় যারা গান শুনতেন  অনেক বেশি ডিভোটেড ছিলেন।  কিন্তু ডিজিটাল মাধ্যমে অনেক বেশি অপশন।  এখন গান শোনার জায়গা বিস্তৃত হয়েছে প্রচুর অপশন থাকায় একটু তো মুশকিল হয়েছে অস্থিরতা বাড়ছে, কিন্তু সেই সময় টা অনেক বেশি শান্তি ছিল।

ও আমার বউদিমণির কাগজওয়ালা, তোমার টানে সারাবেলার গানে এই যে versatility কীভাবে একজন শিল্পী আয়ত্ত করতে পারেন?  আগামী দিনে যারা গান নিয়ে এগোতে চাইছেন তাদের জন্য কী বলবেন?

আমি ভার্সেটাইল বলে আমি করেছি।  আমার মনে হয়েছে আমি করতে পারব তাই আমি চেষ্টা করেছি।  মানুষের ভালো লেগেছে তাই তারা শুনেছেন।  কিন্তু সবার মধ্যে এই দক্ষতা থাকবেই এমন তো কোন কথা নেই।  যার মধ্যে নেই বা যিনি যে ধরনের গান গাইতে পছন্দ করবেন তিনি সেই ধরনের গান গাইবেন।  আর যদি কারোর মনে হয় তিনি পারবেন তাহলে তিনি অবশ্যই চেষ্টা করবেন।  এটাই নিয়ম।  আমি নানান রকমের গান গাইতে পারি, আমি চেষ্টা করেছি এবং আমি পারি সেটা প্রমাণিত হয়েছে।

ব্যক্তিগতভাবে রূপঙ্কর বাগচী কি ধরনের গান শুনতে পছন্দ করেন?

আমি জ্যাজ, রবীন্দ্রনাথের গান, গজল, পুরনো হিন্দি ফিল্মের গান, সুমনের গান শুনতে পছন্দ করি।

আপনার শ্রোতাদের জন্য আপনি কি বলতে চান?

শ্রোতা বন্ধুদের এটুকুই বলব যাঁরা মিউজিশিয়ান রয়েছেন তাদের পাশে থাকুন।  তাঁরা আপনাদের বহু বছর ধরে এন্টারটেইন করে আসছেন তারা বিভিন্ন শোতে বাজিয়েছেন।  বিভিন্ন রেকর্ডিং স্টুডিওতে বাজিয়েছেন।  ছবির গানে ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক করেছেন।  কত রকম ভাবে আপনাদেরকে আনন্দ দিয়েছেন।  আমি জানি এখন খুবই খারাপ সময়।  কিন্তু ওদের আরো অনেক বেশি নিদারুণ অবস্থা।  কারণ আপনাদের যদিওবা কিছু কাজ করার থাকে কনসার্ট যেহেতু পুরোপুরি বন্ধ বিশেষত যারা অ্যাকম্পানিস্ট ইন্সট্রুমেন্টালিস্ট তাদের পাশে থাকলে আপনাদের কাছে আমি চির কৃতজ্ঞ থাকব।

সাক্ষাৎকার গ্রহণ এবং লিখন – সায়নী মুখার্জী

You may also like

Leave a Reply!