Home বঙ্গ স্বাস্থ্য আগে, শাস্ত্র পরে

স্বাস্থ্য আগে, শাস্ত্র পরে

by banganews

স্বয়ং রামকৃষ্ণদেবের পদধূলি পড়েছিল এই মন্দিরে। মন্দিরের প্রতিষ্ঠা নিয়েও অনেক কাহিনী আছে। বর্ধমানের সর্বমঙ্গলা মন্দির। করোনা আবহে বন্ধ ছিল , দুমাস আগে খুলে দেওয়া হয় মন্দির প্রাঙ্গন। তবে ভোগবিলি বন্ধই রাখা হয়। আজ নবান্ন উৎসব। করোনা বিধি মেনেই পালিত হল নবান্ন উৎসব সেই সঙ্গে শুরু হল ভোগবিলি। সংক্রমণ এড়াতে তৈরি করা হয়েছিল পর্যাপ্ত সুরক্ষাবিধি। স্যানিটাইজার দেওয়ার ব্যবস্থাও ছিল। মাস্ক ছিল বাধ্যতামূলক। মন্দির কর্তৃপক্ষের তরফে বলা হয়েছে এখন তাদের মূলমন্ত্র: ‘স্বাস্থ্য আগে; শাস্ত্র পরে’! কথিত আছে রাজা তেজচাঁদের আমল থেকেই চলে আসছে এই প্রথা।

গোদাবরীর তীরে মিলছে দেদার ‘সোনা’, কুড়োচ্ছেন স্থানীয়রা!

এখানে দেবী সর্বমঙ্গলা রূপে পূজিতা হন। যখন মন্দির প্রতিষ্ঠা হয়নি, প্রচারিত হয়নি দেবীমাহাত্ম্য, তখন স্থানীয় জেলেনীরা নাকি মাছ ধরে ফেরার পথে এই মূর্তির উপরেই গুগলি-শামুক ভাঙতেন! মূর্তিটির বিষয়ে তাঁদের মনে তেমন কোনও প্রশ্ন ওঠেনি। তবে এ সংবাদ রাজা তেজচাঁদর কানে যায়। তিনি মূর্তিটি উদ্ধার করেন এবং মন্দির গড়ে সেখানে দেবীকে প্রতিষ্ঠা করেন। সেই থেকেই সর্বমঙ্গলাদেবীর মাহাত্ম্য প্রচারিত হয়। মন্দির ট্রাস্টের সম্পাদক সঞ্জয় ঘোষ জানান, সর্বমঙ্গলা মন্দিরে নবান্ন উৎসব দিয়ে গোটা রাঢ়বঙ্গে নবান্নের সূচনা হল। আজই প্রথম জনসাধারণের জন্য ভোগ বিলি হবে। তবে কোভিড-বিধি মেনেই সব কিছুর আয়োজন করা হয়েছে।

You may also like

Leave a Reply!