Home বঙ্গ লকডাউনের মধ্যে উঠে আসছে নারী নির্যাতনের চাঞ্চল্যকর তথ্য – নির্যাতন রুখতে রাজ্য সরকারের নতুন পদক্ষেপ

লকডাউনের মধ্যে উঠে আসছে নারী নির্যাতনের চাঞ্চল্যকর তথ্য – নির্যাতন রুখতে রাজ্য সরকারের নতুন পদক্ষেপ

by banganews

চলিত ধারণা অনুযায়ী শুধু মহিলারাই গৃহ নির্যাতনের শিকার হন। সে ধারণা বোধ হয় সব ক্ষেত্রে ঠিক নয়। বহু ক্ষেত্রে দেখা গেছে গৃহ নির্যাতনের শিকার হয়েছেন এমন পুরুষদের সংখ্যাও খুব একটা কম নয়। ঘরের মধ্যেই চলে নানা রকম মানসিক ও শারীরিক অত্যাচার। এছাড়া নারী-পুরুষ নির্বিশেষে যৌন অত্যাচারের শিকার হন। বধূ নির্যাতনের কথা তো আমাদের সকলেরই জানা। যেগুলো নির্যাতিতরা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মুখ বুজে সহ্য করে নেয়। শুধুমাত্র এই ভেবে যে ঘরের কথা বাইরে বলে কি লাভ! কালই তো আবার সব আপস হয়ে যাবে। একই ছাদের তলায় চলবে গতানুগতিক জীবন। এটাই সবচেয়ে বড় ভুল। ঘরের মধ্যেই চলে নানা রকম মানসিক ও শারীরিক অত্যাচার। এছাড়া নারী-পুরুষ নির্বিশেষে যৌন অত্যাচারের শিকার হন। নব বধু নির্যাতন তো আছেই। যেগুলো নির্যাতিতারা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মুখ বুজে সহ্য করে নেয়।’ ডোমেস্টিক ভায়োলেন্স ‘ অর্থাৎ পারিবারিক নির্যাতন কিংবা গৃহ নির্যাতন এর শিকারের সংখ্যাটা প্রচুর আমাদের দেশে। মানসিক থেকে শারীরিক। রয়েছে যৌন অত্যাচারও। এবং বধূ নির্যাতন তো আছেই! যেগুলো নির্যাতিতরা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মুখ বুজে সহ্য করে যায়।

আরো পড়ুন –২৫তম বিবাহ বার্ষিকীতে পরিবারের জন্য নিজহাতে রান্না করলেন শচীন

এখানেই ভুলটা হয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এই নির্যাতন কমে না বা বন্ধ হয় না। বরং উত্তরোত্তর বেড়েই চলে। এই ব্যাপারে সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য ফের একবার এগিয়ে এল পশ্চিমবঙ্গ সরকার।
বিশেষ করে এই লকডাউনে এক সমীক্ষায় দেখা গেছে অনেকাংশে বেড়েছে এই গার্হস্থ্য হিংসার ঘটনা। এমন অনেক ঘটনা সামনে এসেছে, যেখানে বাড়ির চৌকঠের মধ্যেই মেয়েদের ওপর অত্যাচার করা হয়েছে নানাভাবে । বাড়ির লোকেরাই করছে। এবং তা বেড়ে চলেছে ক্রমাগত। রাজ্য সরকারের উদ্যোগে পশ্চিমবঙ্গ মহিলা কমিশন একটি নম্বর শেয়ার করেছে। যেখানে ফোন করে যেকোনও রকম পারিবারিক অত্যাচারের রিপোর্ট করা যাবে। নম্বরটি হল, ৯৮৩০০৩২৫৩৭।এই নম্বরে ফোন করতে হবে।

আরো পড়ুন – প্রথমবার স্বল্পদৈর্ঘ্যের ছবিতে বিদ্যা ব্যালান

রাজ্য সরকারের উদ্যোগে এই বিষয়ে বানানো হয়েছে একটি সচেতনতামূলক ভিডিও। যেখানে কঙ্কনা সেন শর্মা, অপর্ণা সেন, উষা উত্থুপ, বিক্রম ঘোষ, পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়, জয়া শীল সহ আরও অনেক শিল্পীরা অংশ নিয়েছেন। তাঁরা সকলে মিলে মানুষের কাছে বার্তা পৌঁছে দিতে চেয়েছেন পারিবারিক নির্যাতনের বিরুদ্ধে। আইনত সরব হওয়ার আবেদন ও বার্তা দিয়েছেন নির্যাতিত ও নির্যাতিতাদের।
উল্লেখ্য, যে যাঁর নিজের বাড়ি থেকেই নিজের অংশটির ভিডিও ফোনে রেকর্ড করেছেন। এরপর এই ভিডিও ইনস্টাগ্রামে শেয়ার করেন সেলেবরা।
অন্য সেলেব থেকে শুরু করে নেটিজেনরা প্রশংসা করেছেন এই উদ্যোগের।

You may also like

2 comments

Leave a Reply!